Banner
English »
» পূর্ববর্তী সংখ্যাসমূহ  
সর্বমোট ব্রাউজ সংখ্যা
সর্বোমোট হিটঃ  530688
স্বতন্ত্র ভিজিটঃ  32522
আজকের হিটঃ  82

বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প

১৯৫৭ সালে এক সংসদীয় আইনের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশন (বিসিক) দেশে ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প উন্নয়ন বিকাশের দায়িত্বে নিয়োজিত একটি মুখ্য প্রতিষ্ঠান। নিজস্ব প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো এবং বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক প্রকল্পের মাধ্যমে বিসিক ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উন্নয়ন ও বিকাশে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের সাথে সাথে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলে কর্মসংস্থান/ আত্ম-কর্মসংস্থান সুযোগ সৃষ্টিসহ দারিদ্র বিমোচনেও বিসিক অবদান রাখছে। বিসিকের কার্যক্রম প্রধানত নিম্নরূপঃ
ক) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প স্থাপন উন্নয়ন ও সম্প্রসারণের জন্য সর্বপ্রকার পরামর্শ ও সহায়তা প্রদান।
খ) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প খাতে ঋন ব্যবস্থাকরণ।
গ) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের প্রয়োজনীয় কাচাঁমাল সরবরাহ নিশ্চিতকরণ।
ঘ) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উন্নয়নের জন্য বিশেষ সুবিধা প্রদানের পাশাপাশি প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত সুবিধাসহ শিল্প প্লট বরাদ্ধের ব্যবস্থাকরন।
ঙ) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প সামগ্রীর বিপণন ব্যবস্থাকরণ।
চ) ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উন্নয়ন ও বিকাশের পাশাপাশি এলাকা ভিত্তিক বিশেষ উন্নয়ন ও উৎপাদন কর্মসূচী/ প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে কর্মসংস্থান ও দারিদ্র বিমোচনে ভূমিকা পালন।
১৫ই ডিসেম্বর,১৯৯১ ইং থেকে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদে হস্তান্তরিত হওয়ার পর পরিষদের মাধ্যমে বিসিকের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।



১.পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে কুটির শিল্প উন্নয়ন প্রকল্পঃ
পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে কুটির ও গ্রামীণ শিল্প উন্নয়ন প্রকল্পটি ১৯৭৪-৭৫ ইং হতে শুরু হয়ে বিভিন্ন পর্যায়ে ১৯৮৯-৯০ পর্যন্ত বাস্তবায়ন করা হয়। পরবর্তীতে ১৯৯০-২০০৫ মেয়াদে বিশেষ উন্নয়ন ও উৎপাদন কর্মসূচীর আওতায় টাঃ- ১৭১৮.০০ লক্ষ ব্যয় বরাদ্ধে তিনটি পার্বত্য জেলার ২৭টি কেন্দ্রের মাধ্যমে ( রাঙ্গামাটি- ১৫, খাগড়াছড়ি- ০৯, বান্দরবান- ০৩) পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে কুটির শিল্প উন্নয়ন প্রকল্প নামে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রকল্পটি সরকারী সিদ্বান্ত অনুযায়ী বর্তমানে রাজস্ব বাজেটে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।
প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যঃ
ক) পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে বসবাসকারী ভূমিহীন, প্রায় ভূমিহীন ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও আয় বৃদ্ধি।
খ) স্থায়ী ও ভ্রাম্যমান প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে দক্ষতা উন্নয়ন।
গ) নির্বাচিত উৎপাদন উন্নয়ন ও পুনরুজ্জীবিতকরণ।
ঘ) পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে বিভিন্ন প্রকার কুটির শিল্প পণ্যের বিপণন সহায়তাকরণ।
ঙ) লক্ষ্য জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন।
প্রকল্পের অবকাঠামোঃ
প্রকল্পের প্রধান কার্যালয় রাঙ্গামাটি পৌরসভাধীন কালিন্দিপুর প্রধান পোস্ট অফিস ও ষ্টেডিয়ামের মধ্যবর্তী স্থানে নিজস্ব ১.১০ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত। এখানে একটি দ্বিতল প্রশাসনিক ভবন, রেস্ট হাউজ, ত্রিতল আটিজান ভবন, একতলা বিক্রয় ও প্রদর্শনীকেন্দ্র এবং তাঁতে বস্ত্র বুনন,বাটিক ছাপা, পোশাক সেলাই, উল বুনন, বাঁশ ও কাঠের কাজের প্রশিক্ষণ ও উৎপাদন কেন্দ্রের চারটি সেমি পাকা টিনশেড ও ২টি সেমি পাকা ডরমেটরী রয়েছে। তদুপরি, ভেদভেদী এলাকায় ২.৭৫ একর জমির উপর একটি দ্বিতল অফিসার্স কোয়ার্টার, শিল্প সহায়ক কেন্দ্র কার্যালয় ও ২টি টিনশেড কর্মচারী আবাসিক গৃহ রয়েছে। জেলার রাইখালী, দীঘলছড়ি, লংগদু,আদারকছড়া, কলাবুনিয়া, বরুনাছড়ি,বাঘাইছড়ি,আমতলী, রূপকারী, রাজস্থলী, বাঙ্গালহালিয়া, বুড়িঘাট, বৈরাগীবাজার ও কাউখালীতে নিজস্ব প্রশিক্ষন ও উৎপাদন কেন্দ্র রয়েছে। অনুরূপভাবে, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবান জেলাতেও প্রকল্পের নিজস্ব স্থাপনা রয়েছে।
বিক্রয় কেন্দ্রঃ
বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্তৃক বিভিন্ন প্রকল্পের আওতায় উৎপাদিত পণ্য সামগ্রীর প্রদর্শণী ও বিক্রয়ের জন্য রাঙ্গামাটি শহরে একটি বিক্রয় ও প্রদর্শনী কেন্দ্র পরিচালিত হচ্ছে। এ কেন্দ্রের মাধ্যমে একদিকে যেমন উৎপাদিত পণ্য সামগ্রী বিক্রয় করা হয় অন্যদিকে তেমনি উৎপাদিত পণ্য সামগ্রীর বিষয়ে ভোক্তাদের রুচি, পছন্দ ও মনোভাব সম্পর্কে অবহিত হওয়া যায়। ফলে নতুন নতুন ডিজাইনে সুলভ মুল্যে পণ্য সামগ্রী উৎপাদনে বিসিক গবেষনার মাধ্যমে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারে। তাছাড়া এ কেন্দ্রের আওতায় বিসিক তার উৎপাদিত পণ্য সামগ্রী আন্তর্জাতিক,জাতীয় ও স্থানীয় মেলায় অংশগ্রহন করে থাকে।
প্রকল্পের জনবলঃ
জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ৬১ জন কর্মকর্তা/কর্মচারী রয়েছে। তন্মধ্যে কর্মকর্তা ১ জন এবং কর্মচারী ৬০ জন।
২. শিল্প সহায়ক কেন্দ্র
শিল্প সহায়ক কেন্দ্র বিসিক রাঙ্গামাটি গত ১৫ ডিসেম্বর ১৯৯১ সাল থেকে পার্বত্য জেলা স্থানীয় সরকার পরিষদের নিকট হস্তান্তরিত একটি বিভাগ। বাংলাদেশের ৬৪ টি জেলায় বিসিকের শিল্প সহায়ক কেন্দ্র চালু আছে। শিল্প সহায়ক কেন্দ্র, বিসিক, রাঙামাটি ১৯৮১ সালে কার্যক্রম শুরু করে এবং এ জেলায় ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প বিকাশের উদ্দেশ্যে নিম্নলিখিত উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ মূলক কর্মকাণ্ড সম্পাদন করে যাচ্ছে।
ক. শিল্প উদ্যোগত্তা চিনহিতকরণ।
খ.প্রজেক্ট প্রোফাইল প্রনয়ন।
গ. শিল্প নিবন্ধীকরণ।
ঘ. কারিগরী তথ্য সংগ্রহ ও বিতরণ।
ঙ.নকশা নমুনা উন্নয়ন ও বিতরণ।
চ.বিপণন সমীক্ষা প্রনয়ন।
ছ.ঋণ ব্যবস্থ্যাকরণ।
আয়োডিনের অভাবজনিত রোগ প্রতিরোধকল্পে সিল্প সহায়ক কেন্দ্র, বিসিক, রাঙ্গামাটি জেলা/উপজেলা পর্যায়ে গ্রামীণ জনসাধারণকে উদ্ভুদ্ধ করার জন্য হাইস্কুল এডভোকেসি সভার আয়োজন করে থাকে। তাছাড়া অসাধু ব্যাবসায়ীরা যাতে আয়োডিন ছাড়া লবণ বিক্রী/ বাজারজাত করতে না পারে সেজন্য সময়ে সময়ে জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে থাকে।
শিল্প নগরীঃ
রাঙ্গামাটি শহরে নিকটবর্তী মানিকছড়িতে ১২,৫ একর জমির উপর সরকার কর্ত্রিক স্থানীয় উদ্যোক্তাদের সহায়তায় ও শিল্প স্থাপনের অবকাঠামো সৃষ্টির লক্ষ্যে কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এ প্রকল্পে সর্বমোট ৩ কোটি ২৯ লক্ষ ২৫ টাকা ব্যয় এ ৮৫ টি বিভিন্ন টাইপের শিল্পপ্লট আছে। এ শিল্প নগরী ক্ষুদ্র ও কুঠির শিপ্ল স্থাপনের মাধ্যমে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ও বেকারত্ত্ব দূরীকরণে গুরত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা যায়।
পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রকল্পঃ ১৯৯৩-৯৪ ইং অর্থ বছরে ৫০,০০০ টাকায় রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ হতে কুটির শিল্প উন্নয়নে ঋণ তহবিল গঠন করা হয়। বর্তমানে এই বরাদ্দের পরিমান ৩ লক্ষ টাকায় উন্নীত হয়েছে। ৫% সরল সুদে সর্বোচ্চ ১২,০০০/- টাকা কুটির শিল্প উন্নয়নে লোন প্রদান করা হয়। এ পর্যন্ত ৪ জুনকে ৩,৮৫ লক্ষ টাকা করে প্রদান করা হয়েছে।

পাবলিক লাইব্রেরী
গণ –গ্রন্থাগার সকলের । সীমাহীন গন্ডি নিয়ে এর উৎপত্তি ও বিকাশ । বিশেষ করে আধুনিক গণ গ্রন্থাগার সামাজিক বুদ্ধিবৃত্তি বিকাশের অভিভাবক । তাই দেখা যায় শিশু কিশোরদের মানস গঠন থেকে আরম্ভ করে জাতি গঠনের সকল স্তরে সকল প্রকার সেবা বিতরণে গণগ্রন্থাগার উদারহস্ত । সে জন্য গণগ্রন্থাগারকে জনগণের বিশ্ববিদ্যালয় বলা হয় ।
জেলা সরকারী গণগ্রন্থাগার রাঙ্গামাটি স্থাপিত হয় ১৯৬৩ খ্রিঃ এবং রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদে হস্থান্তরিত হয় ১ লা মে ১৯৯৩ খ্রিঃ । এটি এখন রাঙ্গামাটি শহরের প্রাণকেন্দ্র বাজারফান্ড প্রশাসনিক ভবনের নীচ তলায় অবস্থিত । বর্তমানে লাইব্রেরির সংগ্রহের সংখ্যা ১৬২৭৮ ।এখানে সাধারণ জ্ঞান , দর্শন , ধর্ম , সমাজ-বিজ্ঞান , ভাষা বিজ্ঞান , প্রযুক্তি বিজ্ঞান , শিল্প ও কলা সাহিত্য , ইতিহাস সহ গুরত্বপুর্ন ও দূর্লভ বই রয়েছে ।এছাড়াও বিভিন্ন ম্যাপ ছবি সহ নানা শিক্ষা উপকরণ রয়েছে ।গণগ্রন্থাগার শুধু বয় তেকে সেবা দেয়না বরং চলতি ঘটনা প্রবাহে সমৃদ্ধ সংবাদপত্র ও সাময়িকী থেকে মূল্যবান গবেষণা নির্ভর প্রশ্ন ফিচার বিভিন্ন শ্রেণীর পাঠকদেরকে সহযগিতা করে যাচ্ছে । গণগ্রন্থাগারে বর্তমানে ১০ টি জাতীয় দৈনিক পত্রিকা ও ২০ টি বিভিন্ন সাময়িকী রাখা হয় । এছাড়াও এ গণগ্রন্থাগারে (১) ইনফরমেশন সার্ভিস , (২) রেফারেন্স সার্ভিস, ( ৩) ইনন্ডেক্সিং সার্ভিস ও (৪) এবেসট্রেকটিং সার্ভিস চালু আছে ।দৈনন্দিন জীবনে শিক্ষায় , সমাজ ও জাতি গঠনে গণগ্রন্থাগারের ভূমিকা অত্যন্ত গুরত্বপুর্ন । ব্যক্তির চিন্তা ধারা বিকাশে , অবসর মুহূর্তে বিনোদনের হাজারো লকের উপকারে ব্রতী এই গ্রন্থাগার । শিক্ষার্থীরা গণগ্রন্থাগারে আসে , বই পড়ে । তাদের কাছে গণগ্রন্থাগার এমন একটি তীর্থস্থান যেখানে ক্লাশের পড়া শেখা যায় , শিক্ষক মহোদয়ের দেয়া এসাইমেন্ট তৈরী করা যায় । পাঠক্রমের বাইরের বিষয়েও জ্ঞান অর্জন করা যায় । বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত জনগণ তাদের কর্মক্ষেত্রে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হলে , গবেষক গবেষণার তথ্যের অসামঞ্জস্য বোধ করলে তথ্যাবলীর জন্য গণগ্রন্থাগারে আসেন । আমাদের গণগ্রন্থাগারটি সকল শ্রেণীর মানুষের জন্য জন্মলগ্ন থেকে সেবার দুয়ার উন্মুক্ত রেখে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের প্রত্যক্ষ তত্বাবধানে জ্ঞানের খোরাক ও রূচি মাফিক বিনোদনের খোরাক জুগিয়ে যাচ্ছে ।
শিক্ষায় জাতির মেরুদন্ড । যে জাতি যত শিক্ষিত , সে জাতি তত উন্নত ও সমৃদ্ধ । এ শিক্ষা মানুষ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান যেমন – প্রাথমিক বিদ্যালয় , মাধ্যমিক বিদ্যালয় , মহাবিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় হতে জীবনের নির্দিষ্ট বয়সে অর্জন করতে পারে । গণগ্রন্থাগার সামাজিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে এ শিক্ষা অর্জনকে পূর্ণতা দানে সহায়তা করে । পাঠক ব্যবহারকারীর জ্ঞান অর্জন , স্বশিক্ষা , সাংস্কৃতিক উন্নয়ন , চিত্তবিনোদন , তথ্য সংগ্রহ , গবেষণা এবং সংরক্ষিত প্রতিষ্ঠানই গণগ্রন্থাগার । আমাদের দেশে বিভিন্ন শ্রেণীর গণগ্রন্থাগার রয়েছে । যেমন – শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গ্রন্থাগার , গবেষণা গ্রন্থাগার , গণগ্রন্থাগার , বিশেষ ধরণের গ্রন্থাগার , জাতীয় গ্রন্থাগার ইত্যাদি । তন্মধ্যে গণগ্রন্থাগারই জাতি,ধর্ম,বর্ণ, পেশা,বয়স নির্বিশেষে শিক্ষা ও জ্ঞানার্জনে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে। সেজন্য গণগ্রন্থাগারকে জনগণের বিশ্ববিদ্যালয় বলা হয়ে থাকে। গণগ্রন্থাগার সমাজের সকল স্তরের নাগরিকের প্রয়োজন অনুযায়ী সাহিত্য, ইতিহাস, ভূগোল, ধর্ম, ভাষা, বিজ্ঞান, সাধারণ জ্ঞান ইত্যাদি বষয়ের পুস্তক সংগ্রহ ও সংরক্ষন করে এবং সেগুলো জনগন উন্মুক্তভাবে ব্যবহার করে জ্ঞানভান্ডার বৃদ্ধি করতে পারে। গণগ্রন্থাগার সদ্য উদঘাটিত তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করে জ্ঞান পিপাসুদের সাম্প্রতিক তথ্য লাভে জনগণের স্ব-শিক্ষার পথ সুগম করে দেয় ।
রাঙ্গামাটি জেলা গণগ্রন্থাগারটি ১৯৯৩ সনের ১ লা মে তারিখ থেকে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের ব্যবস্থাপনা ও নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হচ্ছে । এ গণগ্রন্থাগারের বিভিন্ন প্রকারের ১৫৩৯৬ টি বই রয়েছে । জাতীয় ও স্থানীয় পর্জায়ে নিয়মিত ভাবে প্রকাশিত দৈনিক পত্রিকা বাংলা ৮ টি, ইংরেজী ১ টি, ১ টি মাসিক, ১টি পাক্ষিক ও ৫ টি সাপ্তাহিক পত্রিকা ও ম্যাগাজিন এ গ্রন্থাগারে রাখা হয়। এছাড়াও পার্বত্য অঞ্চলের প্রকৃতি, মানুষ ও সংস্কৃতির উপর উল্লেখযোগ্য প্রকাশনাও এ গ্রন্থাগারে এসে পুস্তক ও প্রকাশনা পাঠ করে জ্ঞান লাভে সক্ষম হচ্ছেন।
জনবলঃ ১ জন কর্মকর্তা এবং ৩ জন কর্মচারী নিয়ে গণগ্রন্থাগার পরিচালিত হয় ।


জনাব বৃষ কেতু চাক্‌মা, Chairman, Rangamati Hill District Council

জনাব বৃষ কেতু চাক্‌মা

চেয়ারম্যান
রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ

» চেয়ারম্যান এর বার্তা

সংবাদ এবং ঘটনাসমুহ
১৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন পালন
মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ এর বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি
মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস ২০১৬ উদযাপন উপলক্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের এবং শহীদ পরিবারের সদস্যদের রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ কর্তৃক সম্মাননা প্রদান
পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাথে রাঙ্গামটি পার্বত্য জেলা পরিষদের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি ২০১৬
রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ ২০১৬-২০১৭ অর্থ বছরের বাজেট ঘোষণা
রাঙ্গামাটিতে ৪র্থ শ্রেণীর প্রাইমারি বৃত্তি পরীক্ষায় কৃতী শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদান-২০১৬
রংগামাটিতে জাতীয় স্যানিটেশন মাস ও বিশ্ব হাত ধোয়া দিবস পালিত-২০১৬
রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ কর্তৃক আয়োজিত ই-ফাইল প্রশিক্ষণ কর্মশালা
জাতীয় পাট দিবস ২০১৭ উপলক্ষে রাঙ্গামাটিতে বর্ণাঢ্য র‌্যালি
» সব সংবাদ